মুখে বয়সের ছাপ? (aging) যেনে নিন দূর করার 04 উপায়

মুখে বয়সের ছাপ (aging) দূর করার উপায়

aging
aging

মানুষের বয়স বৃদ্ধি একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। বয়স বাড়ায় সাথে সাথে বয়সের ছাপও দেখা দেয়। বিশেষ করে মুখে বয়সের ছাপ বেশিমাত্রায় পরিলক্ষিত হয়, যা অনেকের কাছে অস্বস্থির কারণ হয়ে দাড়ায়। আমরা এখন জানবো, কিছু ঘড়োয়া পদ্ধতিতে মুখে বয়সের ছাপ দূর করার উপায়।

প্রকৃতপক্ষে মুখে বয়সের ছাপ একেবারেই দূর করা সম্ভব নয়। তবে কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করে গেলে বয়সের ছাপ পড়ার প্রক্রিয়াটিকে ধীর গতিতে করিয়ে দেওয়া সম্ভব।

মজার ব্যাপার হলো, মুখে বয়সের ছাপ পড়ার প্রক্রিয়াটি তরুণ বয়সে, মানে বিশ থেকে ত্রিশ বছর বয়সেই শুরু হয়ে যায়। মুখের ত্বক আর আগের মতো ঔজ্জ্বল্যের দেখা মেলে না, ত্বক ঢিলা হতে থাকে এবং বাহিরে বেরিয়ে যাওয়ার মতো দেখায়। অনেক সময় ত্বক শুষ্ক হয়ে যায়, আবার ত্বক টান টান হয়ে যেতে পারে।

মুখে বয়সের ছাপ পড়ার কারণ

আগেই বলেছি, মুখে বয়সের ছাপ পড়া খুব স্বাভাবিক একটি প্রক্রিয়া। কিন্তু অনেক সময় বয়সের ছাপ পড়ার প্রক্রিয়াটি অনেক দ্রুতই হতে পারে। আমাদের ত্বকে থাকা নমনীয় টিস্যুগুলো বয়সের সাথে সাথে নষ্ট হয়ে যায়। ফলে আমাদের ত্বকও ঢিলা হয়ে পড়ে। মুখের ত্বকে থাকা নমনীয় টিস্যুগুলো অন্যান্য টিস্যু থেকে বেশি সংবেদনশীল হওয়ায় মুখে বয়সের ছাপ বেশি দেখা মেলে।

সূর্যের রোদ আমাদের ত্বকে বয়সের ছাপ ফেলার একটি প্রধান কারণ। সূর্যের রোদে থাকা অতিবেগুনী রশ্মি মুখে বলিরেখা সৃষ্টিতে প্রধান ভূমিকা রাখে। এই বলিরেখাই কিন্তু আমাদের মুখে বয়সের ছাপ ফেলে।

এছাড়া অপর্যাপ্ত ঘুম আরেকটি কারণ। অপর্যাপ্ত ঘুমের কারণে আমাদের চোখের নিচে কালো রেখা দেখা দেয়। দীর্ঘকালীন অপর্যাপ্ত ঘুমের কারণে এই কালো রেখা স্থায়ী হয়ে যেতে পারে, যা বয়সের ছাপ ফেলে দেয়।

মুখে বয়সের ছাপ দূর করার উপায়

সূর্যের আলো আমাদের মুখে বয়সের ছাপ পড়ার অন্যতম কারণ, তাই সানস্ক্রিন ব্যবহার করে আমরা মুখে বয়সের ছাপ প্রতিরোধ করতে পারি। এক্ষেত্রে বাহিরে বের হওয়ার আগে মুখে ও শরীরের অন্যান্য অংশে সানস্ক্রিন মেখে নিতে পারেন।

এছাড়া ত্বকে নিয়মিত ভালো ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। এটি ত্বকের শুষ্কতা দূর করে আদ্রতার যোগান দেয়, ফলে ত্বকের বলিরেখা ঢাকতে সাহায্য করে। প্রতিদিন অন্তত দুইবার ব্যবহার করলে ভালো ফল পাবেন।

মানবজীবনে ঘুম একটি প্রয়োজনীয় অংশ, ঘুমের কোনো বিকল্প নেই। ঘুমের মাধ্যমে শুধু মানসিক প্রশান্তি নয়, একই সাথে শারিরীক প্রশান্তিও লাভ হয়। তাই সুস্থ-সবল ও সতেজ দেহের জন্য পর্যাপ্ত পরিমান ঘুমাতে হবে। দৈনিক অন্তত ৭ থেকে ৮ ঘন্টা ঘুমাতে হবে।

মুখে বয়সের ছাপ দূর করার ঘরোয়া উপায়

অনেকেই মুখে বয়সের ছাপ রোধে এন্টি এজিং ক্রিম বা অন্যান্য প্রডাক্ট ব্যবহার করতে বলেন। কিন্তু এগুলোর চেয়ে প্রাকৃতিক উপায়ে কিছু ঘরোয়া পদ্ধতিতে মুখের বয়সের ছাপ দূর করতে পারবেন।

  1. ডিমের সাদা কুসুম ব্যবহার

ডিম থেকে কুসুমটি আলাদা করে শুধু সাদা অংশটি ত্বকে ব্যবহার করতে পারেন। ১৫ থেকে ২০ মিনিট ত্বকে মেখে রেখে দিন এবং পরে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ডিমের সাদা অংশে থাকে ভিটামিন বি ও ই, যেগুলো ত্বকের স্বাভাবিকতা ফিরিয়ে আনবে।

2. খাদ্য তালিকায় ভিটামিনযুক্ত খাবার

ভিটামিন আমাদের ত্বকের ঔজ্জ্বল্যতা ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে। এই অবস্থায় প্রচুর পরিমানে ভিটামিনযুক্ত ফল, মূল, শাক, সবজি ইত্যাদি খেতে হবে। বিশেষ করে গাজর, আমলকি, পেয়ারা, কামরাঙা, পেপে, লাউ, কুমড়া, পালং শাক ইত্যাদি খেলে এগুলোতে থাকা মহাউপকারী অ্যান্টিঅক্সিডান্ট আপনার ত্বকের স্বাস্থ্য ভালো রাখবে।

3. পরিমিত পানি পান করুন

পর্যাপ্ত পানি পান করলে দেহ থাকে সতেজ, ত্বকও সুস্থ ও উজ্জ্বল দেখায়। চোখের নিচে সাধারণত কালো দাগ দূর করতে ডাক্তাররা বেশি বেশি পানি পান করতে পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

4. অ্যালোভেরা, পেপে ও কলা ব্যবহার

অ্যালোভেরা, পেপে ও কলায় থাকে অ্যান্টিঅক্সিডান্ট, যা ত্বকের সুস্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। অ্যালোভেরা, পেপে ও কলার পেস্ট আপনার ত্বকের উপরে রাখলে ত্বক সরাসরি এগুলো থেকে অ্যান্টিঅক্সিডান্ট শুষে নিবে। ফলাফলস্বরূপ ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি ও কালো দাগ দূর হবে। সপ্তাহে অন্তত দুইবার এই কাজটি করলে ভালো ফলাফল পাবেন।

বয়স বাড়ার পরেও তারুণ্যের চেহারা কে না পেতে চায়! যদিও মানুষের বয়স বাড়বে, এটি একটি অকট্য সত্য। কিন্তু সঠিক পরিচর্চা আমাদের বয়সের ছাপ দূর করতে সক্ষম। আশা করছি, উপরে বর্ণিত মুখে বয়সের ছাপ দূর করার উপায় আপনাদের কাছে সমাদৃত হবে। ত্বকের যত্নের প্রতি সদয় হন, কাঙ্ক্ষিত ফলাফল দ্রুতই পাবেন।

আরও পড়ুনঃ https://tuneoflife.com/blog-2

Leave a Comment

%d bloggers like this: